Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

প্রাথমিকে শিক্ষক হতে নারীদেরও যোগ্যতা স্নাতক, তবে বহাল থাকছে ৬০% কোটা পদ্ধতি

সরকারি প্রাথমিক শিক্ষক বিধিমালা-২০১৯

প্রাথমিকে নারী শিক্ষক প্রার্থীদেরও সর্বনিম্ন যোগ্যতা স্নাতক সহ ৬০% কোটা

প্রাথমিকে শিক্ষক হতে নারীদেরও যোগ্যতা স্নাতক, তবে বহাল থাকছে ৬০% কোটা পদ্ধতি

Primary Teacher Recruitment Govt. Gadget and Rules 2019 change and update for women candidate

এতদিন এইচএসসি পাসের সনদ থাকা নারীরা প্রাথমিকের শিক্ষক হতে পারতেন।তবে, গত মঙ্গলবার প্রকাশিত ‘সরকারি প্রাথমিক শিক্ষক বিধিমালা-২০১৯’ এর গেজেট অনুযায়ী নারী প্রার্থীদের ৬০ শতাংশ কোটা বহাল থাকলেও শিক্ষাগত যোগ্যতা বাড়ল। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক হতে নারী প্রার্থীদেরও শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক হতে হবে। এমন বিধান রেখে আগের বিধিমালা সংশোধন করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা, ২০১৯ জারি করেছে।

এ বিধিতে বলা হয়েছে, কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দ্বিতীয় শ্রেণি বা সমমানের সিজিপিএসহ স্নাতক বা অনার্স অথবা সমমানের ডিগ্রি থাকতে হবে। বয়সসীমা ২১ থেকে ৩০ বছর। তবে নারী প্রার্থীদের জন্য ৬০ শতাংশ কোটা বহাল থাকবে। ২০ শতাংশ পোষ্য কোটা ও বাকি ২০ শতাংশ পুরুষ প্রার্থীদের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে বিজ্ঞান বিষয়ে পাস প্রার্থীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। যদি ২০ শতাংশ কোটা পূরণ না হয়, তবে মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ দেয়া হবে।

প্রধান শিক্ষক নিয়োগবিধিতেও আনা হয়েছে পরিবর্তন, বিধিমালায় প্রধান শিক্ষক পদটি দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীত হওয়ায় সরকারি কর্মকমিশনের (পিএসসি) নীতিমালার সঙ্গে সংগতি রেখে বয়স নির্ধারণ করা হয়েছে। বয়স ২৫-৩৫ বছর থেকে কমিয়ে ২১-৩০ বছর করা হয়েছে। এ ছাড়া পদোন্নতির ক্ষেত্রে ৬৫ শতাংশ আর পিএসসির মাধ্যমে ৩৫ শতাংশ সরাসরি নিয়োগ দেওয়া হবে।

বর্তমানে যে কোনো বিষয়ে পাস করা প্রার্থীর সমান সুযোগ রয়েছে। মোট পদের শতকরা ২০ ভাগ বিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রিধারীদের মধ্য থেকে নেওয়া হবে। এ ছাড়া ক্লাস্টার বা উপজেলাভিত্তিক আর্ট ও সংগীত শিক্ষক নিয়োগে পদ সৃষ্টি করা হয়েছে।

এর আগে, ২০১৩ সালের ৩ সেপ্টেম্বর এর পর সর্বশেষ প্রকাশিত এ নতুন বিধিমালা অনুযায়ী, শিক্ষক নিয়োগ আগের মতোই উপজেলা বা থানাভিত্তিক হবে। তবে কেন্দ্রীয়ভাবে গঠিত সহকারী শিক্ষক নির্বাচন কমিটির সুপারিশ ছাড়া কোনো ব্যক্তিকে সহকারী শিক্ষক পদে সরাসরি নিয়োগ দেয়া যাবে না। বাংলাদেশের স্থায়ী বাসিন্দা না হলে কাউকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক পদে নিয়োগ দেয়া যাবে না। যিনি বাংলাদেশের নাগরিক নন, এমন ব্যক্তিকেও শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়া যাবে না।

সরকারি প্রাথমিক শিক্ষক বিধিমালা-২০১৯’ এর গেজেট এ পাঁচ পরিবর্তন:

১। নারী প্রার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা বাড়ল

২। প্রধান শিক্ষক নিয়োগবিধিতে পরিবর্তন

৩। বিজ্ঞানে স্নাতক ডিগ্রিধারীদের অগ্রাধিকার

৪। ক্লাস্টার বা উপজেলাভিত্তিক আর্ট ও সংগীত শিক্ষক নিয়োগে নতুন পদ সৃষ্টি

৫। কেন্দ্রীয় কমিটির সুপারিশ ছাড়া নিয়োগ নয়










‘সরকারি প্রাথমিক শিক্ষক বিধিমালা-২০১৯




মন্তব্য করুন (Comments)

comments

Related posts

error: Content is protected !!