Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ‘সহকারী শিক্ষক’ নিয়োগের পরীক্ষার প্রথম ধাপ ১০ মে

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ‘সহকারী শিক্ষক’ নিয়োগের পরীক্ষার প্রথম ধাপ ১০ মে

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ‘সহকারী শিক্ষক’ নিয়োগের পরীক্ষা ৫ ধাপে অনুষ্ঠিত হবে। ১ম ধাপে ২০ হাজার জন পর্যন্ত প্রার্থী আছে এরকম ৭ জেলায় আগামী ১০ মে লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। যেসব জেলায় লিখিত পরীক্ষা আগে শেষ হবে সেখানে আগেই মৌখিক পরীক্ষা নিয়ে চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে। ২৩ এপ্রিল বুয়েটে বিশেষজ্ঞদের সাথে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রথম ধাপে ১০ মে নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এছড়াও, বৈঠকে পরীক্ষার সময়সূচি, ওএমআর ফরম ডিজাইন ও মূল্যায়ন এবং ফলাফল প্রকাশের কার্যক্রম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।

জানা গেছে, এবার নিয়োগ পরীক্ষা বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) তত্ত্বাবধানে সম্পূর্ণ ডিজিটালাইজড পদ্ধতিতে নেয়া হবে। নির্ধারিত জেলায় পরীক্ষার আগের রাতে ইন্টারনেটের মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের (ডিসি) কাছে প্রশ্নপত্রের সব সেট পাঠানো হবে। পরীক্ষার দিন সকাল ৮টায় প্রশ্নপত্র ছাপিয়ে তা কেন্দ্রে পৌঁছে দেয়া হবে। পৌর এলাকার মধ্যে এবার পরীক্ষা নেয়া হবে। আবেদনকারীর আসন বুয়েট অত্যাধুনিক সফটওয়ারের মাধ্যমে নির্ধারণ করে দেবে। একই সঙ্গে আবেদনকারীর আসন বণ্টন অনুযায়ী প্রশ্নের সেট নির্ধারণ করে দেবে। প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে এবার ২০ সেট প্রশ্ন তৈরি করা হবে।

এর আগে উক্ত পরীক্ষা ১৫ মার্চ ২০১৯ তারিখে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও ১৩ মার্চ ‘জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৯’ পালন করার সিদ্ধান্ত হওয়ায় তা পেছানো হয়। তার আগে ২০১৮ সালের মধ্যে এই পরীক্ষা শেষ করার ইচ্ছে থাকলেও সময় পেছানোর নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এ বছর প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে ১২ হাজার আসনের বিপরীতে ২৪ লাখ ৫ জন প্রার্থী আবেদন করেছেন। সে হিসেবে প্রতি আসনে লড়বেন ২০০ জন।

৫ ধাপে পরীক্ষা হবে
ধৈর্য্য সহকারে পুরো রুটিন দেখবেন এবং আপনার থানার নাম যে ধাপে থাকবে সেই ধাপের সময়সূচি অনুসারে আপনার পরীক্ষা হবে। যদি একধাপে জেলার নাম আছে কিন্তু আপনার থানার নাম নেই, তাহলে পরের ধাপে খুঁজবেন আপনার থানার নাম। কারণ, পরীক্ষা হবে থানাওয়ারী  ।
.
.
১ম ধাপ।
পরীক্ষার তারিখঃ ১০ মে, ২০১৯। শুক্রবার।
১. যেসব জেলার সকল থানায় একসাথে হবে- জয়পুরহাট, চাপাইনবাবগঞ্জ, পাবনা, লালমনিরহাট, ঠাকুরগাঁও, নারায়ণগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, শেরপুর, রাজবাড়ি, মুন্সিগঞ্জ, মাগুরা, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, ফেণী, বরগুনা ও ভোলা।
২. সুনামগঞ্জ- সদর, দোয়ারাবাজার, বিশ্বম্ভরপুর, ছাতক, ছাল্লা।
৩. সিলেট- সদর, কানাইঘাট, বালাগঞ্জ, ফেঞ্চুগঞ্জ, জৈন্তাপুর, বিশ্বনাথ।
৪. পিরোজপুর- সদর, ভান্ডারিয়া, নেছারাবাদ।
৫. পটুয়াখালী- সদর, গলাচিপা, দুমকী।
৬. বরিশাল- সদর, আগৈলঝাড়া, বাকেরগঞ্জ, গৌরনদী।
৭. ঝালকাঠি- সকল থানা।
৮. কুষ্টিয়া- সদর, মিরপুর, খোকসা।
৯. সাতক্ষীরা- সদর, শ্যামনগর, আশাগুনি।
১০. নীলফামারী- সদর, ডোমার, সৈয়দপুর।
১১. নাটোর- সদর, শুকমাসপুর, সিংড়া।
.
.
২য় ধাপ।
পরীক্ষার তারিখঃ ১৭ মে, ২০১৯। শুক্রবার।
১. গোপালগঞ্জ- সদর, কোটালীপাড়া।
২. শরীয়তপুর- গোসাইরহাট, নড়িয়া, ভেদরগঞ্জ।
৩. মাদারীপুর- সদর, রাজৈব।
৪. ফরিদপুর- সদর, চরতদ্রাসন, আলকাডাংগা, সদর, সদরপুর, সালঘা।
৫. নরসিংদী- মনোহরদী, রায়পুরা, বেলাবো।
৬. কিশোরগঞ্জ- বাজিতপুর, অস্টগ্রাম, হোসেনপুর, কটিয়াদি, পাকুন্দিয়া, ইটনা।
৭. জামালপুর- সদর, মেলান্দহ, বকশীগঞ্জ।
৮. টাংগাইল- মির্জাপুর, মধুপুর, ভুয়াপুর, নাগরপুর, কালিহাতী, ধনবাড়ি।
৯. লক্ষ্মীপুর- সদর, কমলনগর।
১০. কক্সবাজার- সদর, উখিয়া, কুতুবদিয়া, পেকুয়া, টেকনাফ।
১১. চাঁদপুর- শাহরাস্তি, ফরিদগঞ্জ, মতলব উত্তর, মতলব দক্ষিণ।
১২. মৌলভীবাজার- রাজনগর, কমলগঞ্জ, জুড়ী, শ্রীমংগল।
১৩. হবিগঞ্জ- সদর, নবীগঞ্জ, লাখাই, বাহুবল।
.
.
৩য় ধাপ
পরীক্ষার তারিখঃ ২৪ মে, ২০১৯। শুক্রবার।
১. ঢাকা- সকল থানা একবারে।
২. গোপালগঞ্জ- টুংগীপাড়া, কাশিয়ানী, মকসুদপুর।
৩. শরীয়তপুর- সদর, ডামুড়্যা, জাজিয়া।
৪. মাদারীপুর- কালকিনী, শিবচর।
৫. ফরিদপুর- নগরকান্দা, বোয়ালমারী, ভাংগা, মধুখালী।
৬. নরসিংদী- সদর, পলাশ, শিবপুর।
৭. জামালপুর- সরিষাবাড়ি, দেওয়ানগঞ্জ, ইসলামপুর, মাদারগঞ্জ।
৮. টাংগাইল- সদর, গোপালপুর, ঘাটাইল, সখিপুর, বাসাইল, দেলদুয়ার।
৯. কিশোরগঞ্জ- সদর, করিমগঞ্জ, নিকলী, কুলিয়ারচর, তারাইল, ভৈরব, মিঠামইন।
১০. লক্ষ্মীপুর- রায়পুর, রামগঞ্জ, রামগতি।
১১. কক্সবাজার- রামু, মহেশখালী, চকোরিয়া।
১২. চাঁদপুর- সদর, কচুয়া, হাজীগঞ্জ, হাইমচর।
১৩. মৌলভীবাজার- সদর, বড়লেখা, কুলাউড়া।
১৪. হবিগঞ্জ- বানিয়াচং, আজমিরিগঞ্জ, চুনারুঘাট, মাধবপুর।
১৫. সুনামগঞ্জ- তাহিরপুর, জামালগঞ্জ, ধর্মপাশা, জগন্নাথপুর, দিরাই, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ।
১৬. সিলেট- গোয়াইনঘাট, কোম্পানীগঞ্জ, জকিগঞ্জ, গোলাপগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, দক্ষিণসুরমা।
১৭. পিরোজপুর- কাউখালী, নাজিরপুর, মঠবাড়িয়া, ইন্দুরকানি।
১৮. পটুয়াখালী- দশমিনা, বাউফল, মির্জাপুর, কলাপাড়া, রাঙ্গাবালী।
১৯. বরিশাল- উজিরপুর, বানারীপাড়া, বাবুগঞ্জ, মুলাদী, মেহেন্দিগঞ্জ, হিজলা।
২০. কুষ্টিয়া- ভেড়ামারা, দৌলতপুর, কুমারখালী।
২১. সাতক্ষীরা- দেবহাটা, কলারোয়া, কালিগঞ্জ, তালা।
২২. নাটোর- নলডাংগা, লালপুর, বড়াইগ্রাম, বাগাতিপাড়া।
২৩. নীলফামারী- কিশোরগঞ্জ, জলঢাকা, ডিমলা।
.
.
৪র্থ ধাপ।
পরীক্ষার তারিখঃ ৩১ মে, ২০১৯। শুক্রবার।
১. নেত্রকোণা- দুর্গাপুর, পূর্বধলা, বারহাট্রা, মদন, মোহনগঞ্জ, খালিয়াজুড়ি।
২. ময়মনসিংহ- গফরগাঁও, ঈশ্বরগঞ্জ, ফুলবাড়িয়া, ফুলপুর, গৌরীপুর, তারাকান্দা, ধোবাউড়া।
৩. ব্রাহ্মণবাড়িয়া- সদর, নবীনগর, বাঞ্চারামপুর, আখাউড়া।
৪. কুমিল্লা- সদর, লাকসাম, দেবিদ্বার, হোমনা, মুরাদনগর, দাউদকান্দি, চৌদ্দগ্রাম।
৫. চট্টগ্রাম- ডবলমুরিং, পাহাড়তলী, বন্দর, পাঁচলাইশ, চান্দগাঁও, কোতোয়ালী, বাঁশখালী, রাউজান, সন্দীপ, ফটিকছড়ি, আনোয়ারা, লোহাগড়া।
৬. নোয়াখালী- সদর, বেগমগঞ্জ, কবিরহাট, সুবর্ণচর।
৭. যশোর- ঝিকরগাছা, বাঘারপাড়া, মনিরামপুর, শার্শা।
৮. খুলনা- সদর, কায়রা, ডুমুরিয়া।
৯. বাগেরহাট- মোংলা, মোল্লাহাট, মোড়েলগঞ্জ, কচুয়া, শরনখোলা।
১০. ঝিনাইদহ- হরিণাকুণ্ডু, মহেশপুর, শৈলকুপা।
১১. পঞ্চগড়- সকল থানা একবারে।
১২. কুড়িগ্রাম- সদর, উলিপুর, চিলমারী, রাজিবপুর, ফুলবাড়ি।
১৩. গাইবান্ধা- সদর, গোবিন্দগঞ্জ, পলাশবাড়ি।
১৪. রংপুর- সদর, গাংগাচরা, কাউনিয়া, বদরগঞ্জ।
১৫. দিনাজপুর- সদর, ঘোড়াঘাট, খানসামা, চিরিরবন্দর, হাকিমপুর, বীরগঞ্জ।
১৬. নওগাঁ- মান্দা, বদলগাছী, মহাদেবপুর, সাপাহার, রাণীনগর।
১৭. বগুড়া- আদমদিঘী, শিবগঞ্জ, শেরপুর, ধুনট, সোনাতলা, শাহজাহানপুর।
১৮. রাজশাহী- সদর, গোদাগাড়ী, চারঘাট, বাঘমারা।
১৯. সিরাজগঞ্জ- সদর, কাজিপুর, রায়গঞ্জ, বেলকুচি, চৌহালী।
.
.
৫ম ধাপ।
পরীক্ষার তারিখঃ ১৪ জুন, ২০১৯। শুক্রবার।
১. গাজীপুর- সকল থানা একবারে।
২. ময়মনসিংহ- সদর, মুক্তাগাছা, ভালুকা, ত্রিশাল, হালুয়াঘাট, নান্দাইল।
৩. নেত্রকোণা- সদর, আটপাড়া, কলমাকান্দা, কেন্দুয়া।
৪. ব্রাহ্মণবাড়িয়া- কসবা, সরাইল, আশুগঞ্জ, নাসিরনগর, বিজয়নগর।
৫. কুমিল্লা- বুড়িচং, বরুড়া, ব্রাহ্মণপাড়া, চান্দিনা, সদর দক্ষিণ, নাঙ্গলকোট, মনোহরগঞ্জ, মেঘনা, তিতাস, লালমাই।
৬. চট্টগ্রাম- পটিয়া, বোয়ালখালী, চন্দনাইশ, হাটহাজারী, রাঙ্গুনিয়া, মীরেরসরাই, সীতাকুণ্ড, সাতকানিয়া।
৭. নোয়াখালী- চাটখিল, কোম্পানীগঞ্জ, সোনাইমুড়ি, সেনবাগ, হাতিয়া।
৮. যশোর- সদর, অভয়নগর, কেশবপুর, চৌগাছা।
৯. খুলনা- তেরখানা, দাকোপ, দিঘলিয়া, পাইকগাছা, ফুলতলা, রুপসা, বটিয়াঘাটা।
১০. নড়াইল- সব থানায় একবারে।
১১. বাগেরহাট- সদর, চিতলমারী, রামপাল, ফকিরহাট।
১২. ঝিনাইদহ- সদর, কোটচাঁদপুর, কালিগঞ্জ।
১৩. কুড়িগ্রাম- নাগেশ্বরী, রাজারহাট, ভুরুঙ্গামারী, বৌমারী।
১৪. গাইবান্ধা- ফুলছড়ি, সাদুল্লাপুর, সাঘাটা, সুন্দরগঞ্জ।
১৫. রংপুর- তারাগঞ্জ, পীরগঞ্জ, পীরগাছা, মিঠাপুকুর।
১৬. দিনাজপুর- নবাবগঞ্জ, ফুলবাড়ি, পার্বতীপুর, বিরল, বিরামপুর, বোচাগঞ্জ, কাহারোল।
১৭. নওগাঁ- সদর, আত্রাই, দামুইরহাট, নিয়ামতপুর, পত্নীতলা, পোরশা।
১৮. বগুড়া- সদর, কাহালু, সুপাচাচিয়া, গাবতলী, সারিয়াকান্দি, নন্দীগ্রাম।
১৯. রাজশাহী- তানোর, দুর্গাপুর, পুটিয়া, বাঘা, পবা, মোহনপুর।
২০. সিরাজগঞ্জ- উল্লাপাড়া, তাড়াশ, কামারখন্দ, শাহজাদপুর।

প্রার্থীরা http://dpe.teletalk.com.bd ওয়েবসাইট থেকে প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারবেন। ওএমআর শিট পূরণের নির্দেশাবলি এবং পরীক্ষাসংক্রান্ত অন্যান্য তথ্য ওয়েবসাইট (www.dpe.gov.bd) থেকে পাওয়া যাবে।

গত ৩০ জুলাই ‘সহকারী শিক্ষক’ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। পুরনো নিয়োগ বিধিমালা অনুসরণ করে এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়। গত ১ থেকে ৩০ আগস্ট পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন কার্যক্রম শেষ হয়। সারা দেশ থেকে মোট ২৪ লাখ ৫টি আবেদন এসেছে। এর মধ্যে ঢাকা বিভাগে ৪ লাখ ৫২ হাজার ৭৬০টি, চট্টগ্রাম বিভাগে ৩ লাখ ৮২ হাজার ৩৩৫টি, রাজশাহী বিভাগে ৩ লাখ ৬২ হাজার ৯২৫টি, খুলনা বিভাগে ২ লাখ ৪৮ হাজার ৭৩০টি, বরিশাল বিভাগে ২ লাখ ৫৫ হাজার ৮২৭টি, সিলেট বিভাগে ১ লাখ ২০ হাজার ৬২৩টি, রংপুর বিভাগে ২ লাখ ৯৪ হাজার ৩৬৮টি এবং ময়মনসিংহ বিভাগ থেকে ২ লাখ ৮২ হাজার ৪৩৭টি আবেদন জমা হয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এবার সর্বোচ্চ আবেদন জমা পড়েছে চট্টগ্রাম জেলায়। এ জেলায় মোট ৯৮ হাজার ৯৬৯টি আবেদন পড়েছে। এরপরে ময়মনসিংহ জেলায় ৮৮ হাজার ২১৮টি, কুমিল্লায় ৮৪ হাজার ৭২৮টি, দিনাজপুরে ৬২ হাজার ৯৭১টি, রংপুরে ৫৯ হাজার ৭১টি, জয়পুরহাটে ১৮ হাজার ১৭৮টি, বগুড়ায় ৬৪ হাজার ৭২৭টি, জামালপুর ৫০ হাজার ৫০টি, যশোরে ৫৫ হাজার ৯৩২টি, টাঙ্গাইলে ৬১ হাজার ৬৩০টি, নওগাঁয় ৪৯ হাজার ৮৬৩টি, রাজশাহীতে ৫৭ হাজার ৩৮২টি, ঢাকায় ৬৪ হাজার ৫৫৮, বরিশালে ৬১ হাজার ৮৮৩টি, সিলেট জেলায় ৫০ হাজার ৩৭০টি আবেদন জমা পড়েছে। এছাড়া চাঁপাই নবাবগঞ্জে ৩০ হাজার ২৭১টি, নাটোরে ৩৫ হাজার ২৫৭টি, সিরাজগঞ্জে ৫৮ হাজার ১৪৯টি, পাবনায় ৫১ হাজার ২৩১, কুষ্টিয়ায় ৩২ হাজার ৬০৯টি, মেহেরপুরে ১০ হাজার ৮৮৮টি, চুয়াডাঙ্গায় ১৮ হাজার ৬৬১টি, ঝিনাইদহে ৩৭ হাজার ৬১৭টি, মাগুরায় ২১ হাজার ৯৬২টি, নড়াইলে ১৫ হাজার ৬১৪টি, সাতক্ষীরায় ৪৫ হাজার ৬১টি, খুলনায় ৪৭ হাজার ১৮৮টি, বাগেরহাটে ৩২ হাজার ৯৭টি, শেরপুরে ২৫ হাজার ৪৬৬টি, নেত্রকোনায় ৪২ হাজার ৭৫৩টি, কিশোরগঞ্জে ৪৭ হাজার ৮৮৫টি, গাজীপুরে ৩৫ হাজার ৫১৭টি, নরসিংদীতে ৩৮ হাজার ১৪৩টি, মানিকগঞ্জে ২৫ হাজার ৭১১টি, নারায়ণগঞ্জে ২৭ হাজার ১২৭টি, মুন্সীগঞ্জে ১৮ হাজার ৭৫৯টি, রাজবাড়ীতে ২১ হাজার ৯০৬টি, ফরিদপুরে ৩৩ হাজার ৬৪৩টি, মাদারীপুরে ২৪ হাজার ৮০৭টি, শরীয়তপুরে ১৮ হাজার ৭৮৬টি, গোপালগঞ্জে ২৯ হাজার ২১৫টি, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৩৮ হাজার ৪০টি, চাঁদপুরে ৪৬ হাজার ৯১টি, লক্ষ্মীপুরে ২৩ হাজার ৩৩০টি, নোয়াখালীতে ৪০ হাজার ৭৩৯টি, ফেনীতে ২১ হাজার ৫০১টি, কক্সবাজারে ২৬ হাজার ৭৫০টি, পিরোজপুরে ২৯ হাজার ২৭৮টি, ঝালকাঠিতে ১৯ হাজার ১৩৮টি, বরগুনায় ২১ হাজার ৭১৭টি, পটুয়াখালীতে ৪০ হাজার ৮০৭টি, ভোলায় ২৫ হাজার ১৪৫টি, সুনামগঞ্জে ৩৫ হাজার ৫১২টি, হবিগঞ্জে ৩৩ হাজার ৪৭৫টি, মৌলভীবাজারে ৩২ হাজার ১০৬টি, পঞ্চগড়ে ২১ হাজার ৬২৯টি, ঠাকুরগাঁওয়ে ৩১ হাজার ৭৯৭টি, নীলফামারীতে ৩৯ হাজার ৭৫২টি, লালমনিরহাটে ২৬ হাজার ১২২টি, কুড়িগ্রামে ৪৩ হাজার ২৯৪টি এবং গাইবান্ধায় ৫৫ হাজার ৫১৭টি আবেদন।

নারী আবেদনকারীদের ৬০ শতাংশ কোটায় এইচএসসি বা সমমান পাস এবং পুরুষের জন্য ৪০ শতাংশ কোটায় স্নাতক বা সমমান পাস রাখা হয়েছে। লিখিত পরীক্ষায় প্রতি আসনের বিপরীতে তিনজনকে (একজন পুরুষ ও দুইজন নারী) নির্বাচন করা হবে। মৌখিক পরীক্ষার পর চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

প্রবেশপত্র ডাউনলোড করুনঃ

মন্তব্য করুন (Comments)

comments

Related posts

error: Content is protected !!